আজ: শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১ইং, ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৯ মার্চ ২০২১, শুক্রবার |



kidarkar

শাল্লায় হামলার ঘটনায় আটক ২২

জাতীয় ডেস্ক: সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনায় বৃহস্পতিবার পৃথক দু’টি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২২জনকে আটক করেছে পুলিশ।

গতকাল ১৮ মার্চ গভীর রাতে বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হক জানান, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে এখন পর্যন্ত ২২ জনকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের আটক করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অভিযান পরিচালনার স্বার্থে আটককৃতদের নাম প্রকাশ করেননি ওসি।

তিনি আরো জানান, পুলিশ বাদী হয়ে দায়ের করা মামলার বাদী সাব ইন্সপেক্টর আব্দুল করিম। এই মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে এবং গ্রামবাসীর পক্ষে আরেকটি মামলায় ৮০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৭০০জনকে আসামি করা হয়েছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা মামুনুল হকসহ ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করেছিলেন স্থানীয় হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা ঝুটন দাস আপন। মামুনুল হক সমর্থকদের হামলায় ১৫/২০টি বাড়িঘর ভাংচুর হয়। এ ঘটনায় হবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা বিবেকানন্দ মজুমদার বকুলের দায়েরকৃত মামলায় প্রধান আসামি ঘটনার উস্কানিদাতা নাচনী গ্রামের বাসিন্দা ও সরমঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য স্বাধীন মিয়া। অন্যদিকে অভিযুক্ত ঝুটন দাস আপনকেও মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) রাতে আটক করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার হেলিকপ্টার যোগে শাল্লা আসেন র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন। তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়িঘর পরিদর্শন করেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শান্তি ও গ্রামবাসীকে নিরাপদে বসবাসের আশ্বাস দেন। র‌্যাব মহাপরিচালকের নির্দেশে নোয়াগাঁও গ্রামে অস্থায়ী র‌্যাব ও পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়েছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.