আজ: সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১১ জুন ২০১৬, শনিবার |



kidarkar

উপ-মন্ত্রীর পদমর্যাদা চান বিরোধীদলীয় হুইপ

parliamentশেয়ারবাজার রিপোর্ট: উপ-মন্ত্রীর মর্যাদা চেয়ে জাতীয় সংসদের স্পিকারের কাছে চিঠি দিয়েছেন বিরোধীদলীয় চীফ হুইপ তাজুল ইসলাম চৌধুরী। মর্যাদা বাড়ানোর পাশাপাশি পরিতোষিক হিসেবে দপ্তরের জন্য মাসিক ২০ হাজার টাকা আপ্যায়ন ভাতাও দাবি করেছেন কুড়িগ্রাম-২ আসনে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত এ সংসদ সদস্য।

বিদ্যমান আইন অনুযায়ী, সংসদের প্রধান হুইপ (সরকারি দলের) মন্ত্রী এবং অন্যান্য হুইপরা প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা ভোগ করেন। বিরোধীদলের হুইপরা এ ধরনের কোনো সুবিধা পান না। সরকারদলীয় হুইপদের অনুমোদন রাষ্ট্রপতি দেন, অন্যদিকে বিরোধীদলের হুইপ নির্ধারিত হয় সংশ্লিষ্ট দলের সংসদীয় দলের বৈঠকে। বিধান মোতাবেক, সংসদীয় কমিটির সভাপতিরা মাসে আট হাজার টাকা করে আপ্যায়ন ভাতা পান। অন্যদিকে সরকারি দলের প্রধান হুইপ ও হুইপরা মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা অনুযায়ী আপ্যায়ন ভাতা পেয়ে থাকেন।

বছর ছয়েক আগে সংসদ সচিবালয় কমিশনের ২০ তম বৈঠকে বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপের পদটিকে উপমন্ত্রীর মর্যাদা দেওয়া যায় কিনা সে বিষয়ে আলোচনা হয় বলে সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। বৈঠকে বিরোধীদলীয় প্রধান হুইপের অফিসের জন্য একজন একান্ত সচিব, একজন ব্যক্তিগত সহকারী ও একজন অফিস সহায়ক নিয়োগ দিতে স্পিকারকে ক্ষমতা দেওয়া হয়। তবে সংসদ সচিবালয়ের কাঠামোতে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের অফিসে জনবল অনুমোদন না থাকায় এ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়নি।

এ বৈঠকের কথা উল্লেখ করে তিনি লিখেন, ‘সিদ্ধান্ত হওয়া সত্বেও অদ্যাবধি কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এমাতবস্থায় বিরোধী দলীয় চিফ হুইপের পদ উপ-মন্ত্রীর মর্যাদার সমমানে উন্নীত করার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের প্রস্তাব করছি।’

সার্বভৌম প্রতিষ্ঠান জাতীয় সংসদে সংশ্লিষ্টদের বেতন-ভাতাসহ আনুষঙ্গিক ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রতিবছরই কমিশন বৈঠকে বাজেট বরাদ্দ অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে তা অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। কমিশন বৈঠকেই সংসদের বিভিন্ন প্রকল্প, জনবল নিয়োগ, ভাতা বৃদ্ধিসহ অন্যান্য বিষয় অনুমোদন নেওয়া হয়।

শেয়ারবাজারনিউজ/ওহ

 

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.