গ্রামীণফোনের অবৈধ আয়ের পুরোটাই জরিমানা

gpশেয়ারবাজার রিপোর্ট: চুক্তি ভঙ্গ করে গত দুই বছরে ‘গো’ ব্রডব্যান্ডের মাধ্যমে সেবা প্রদান করায় দেশের বৃহৎ মোবাইল ফোন অপারেটর এবং দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত টেলিযোগাযোগ খাতের কোম্পানি গ্রামীনফোনকে জরিমানা করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। কোম্পানিকে ৩০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এছাড়াও শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত আরেক কোম্পানি আইটি খাতের অগ্নি সিস্টেম লিমিটেড এবং ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান (আইএসপি) এডিএনকেও ৫ লাখ টাকা করে জরিমানার করেছে বিটিআরসি। খুবই শিগগিরি কোম্পানিগুলোকে নোটিশ পাঠাবে বিটিআরসি। বিটিআরসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, বিটিআরসি’র অনুমোদন না নিয়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত গ্রামীণফোন ‘গো’ ব্রডব্যান্ডের আড়ালে আইন লঙ্ঘন করে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবসা করছিলো। আর গ্রামীণফোনের এমন অবৈধকাজে সহযোগিতা করেছে অগ্নি সিস্টেমস লিমিটেড এবং এডিএন। তাই এ তিন প্রতিষ্ঠানকে কারন দর্শানোর নোটিশ দেয় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। কিন্তু কোম্পানিগুলো কারণ দর্শানোর নোটিশ অসন্তোষ মনে করেন বিটিআরসি। আর তাই কোম্পানিগুলোকে জরিমানা করেছে বিটিআরসি।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে,  টেলিযোগাযোগ আইন অনুযায়ী কোনো মোবাইল ফোন অপারেটর সরাসরি তাদের অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে এ ধরনের ‘লাস্ট মাইল কানেকটিভিটি’ সেবা দিতে পারে না। লাস্ট মাইল কানেকটিভিটি হলো অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সর্বশেষ পর্যায়ের সংযোগ।

অপারেটরটিকে জরিমানার বিষয়ে বিটিআরসি বলছে, গ্রামীণফোন ২০১৪ সালে এ অবৈধ সেবা চালু করে। দুই বছরে তারা এ সেবায় আয় করেছে ৩০ কোটি টাকা। অবৈধ এ আয়ের পুরোটাই আদায় করা হবে জরিমানা হিসেবে।

এর আগে ফেব্রুয়ারি মাসে ইন্টারনেট সরবরাহকারীদের সংগঠন জিও ব্রডব্যান্ডের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবসা করার অভিযোগ করেছিল। এর প্রেক্ষিতে জিও ব্রডব্যান্ডের বিরুদ্ধে তদন্ত করে বিটিআরসি। বিটিআরসি’র তদন্তে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এ দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবসায় গুরুতর অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া যায়।

সূত্র জানায়, জিও ব্রডব্যান্ড গ্রামীণফোনেরই একটি প্রতিষ্ঠান। আর এতে পার্টনার হিসেবে রয়েছে অগ্নি সিস্টেমস লি: এবং এএনডি টেলিকম লিমিটেড। জিও ব্রডব্যান্ড এর নামে গ্রামীনফোন রাষ্ট্রায়ত্ত্ব সোনালী ব্যাংকের ৫০০টিরও বেশী শাখায় ব্রডব্যান্ড (তারযুক্ত)ইন্টারনেট সরবরাহ করছে।

বিটিআরসি’র এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মোবাইল অপারেটর শুধুমাত্র ওয়্যারলেস ইন্টারনেট সংযোগ দিতে পারে। কিন্তু গ্রামীণফোন আইন লঙ্ঘন করে ব্রডব্যান্ড (তারযুক্ত) ইন্টারনেট ব্যবসা করছে।

এ কর্মকর্তা আরও বলেন, আইন অনুযায়ী আইএসপি লাইসেন্সধারীরা ন্যাশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) অপারেটরের সহায়তায় ব্রডব্যান্ড (তারযুক্ত) ইন্টারনেট সহায়তা দিতে পারে। অথচ গ্রামীণ ফোনের আইএসপি লাইসেন্স নেই। অথচ সোনালী ব্যাংকের সাথে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সরবরাহ করার জন্য গ্রামীণফোনের চুক্তি হয়েছে। এনটিটিএন কিংবা গ্রামীণ ফোনের অন্য দুটি পার্টনার যাদের আইএসপি লাইসেন্স আছে তাদের সাথে সোনালী ব্যাংকের চুক্তি হয়নি।

এ বিষয়ে গ্রামীণফোনের অফিসে টিএনটি’র মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশ না করে এক কর্মকর্তা বলেন, বিটিআরসি’র কারন দর্শানোর নোটিশ আমরা এখনও পাইনি।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top