ডিভিডেন্ডের মৌসুমেও মন্দা পুঁজিবাজার

bazarশেয়ারবাজার রিপোর্ট: ডিভিডেন্ডের মৌসুমেও পুঁজিবাজারে চলছে মন্দা। এ মন্দা পরিস্থিতে কমছে বেশীরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। দরপতনের কবল থেকে কিছুতেই যেন মুক্তি মিলছে না। এখন অবস্থাটা এমন হয়েছে যে, এক-পা এগোয় তো তিন পা পিছিয়ে যায় বাজার। অর্থাৎ সূচক একদিন বাড়ে তো কয়েক দিন কমে। যতটুকু সূচক বাড়ছে তার চেয়ে বেশি কমে যায়। এমন পরিস্থিতিতে সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতায় লেনদেন শেষ হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১ কার্যদিবস উত্থানের পর আবারও বিরাজ করছে বাজার। এইদিন শুরুতে উত্থান থাকলেও ৩৫ মিনিট পর সেল প্রেসারে টানা নামতে থাকে সূচক। মঙ্গলবার সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দরে। আর টাকার অংকে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কিছুটা কমেছে। আজ দিন শেষে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৭০৫ কোটি টাকা।

মঙ্গলবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৫৫৭১ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২৮২ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২০৫৬ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩২৭টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯১টির, কমেছে ২০৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩২টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৭০৫ কোটি ৭১ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

এর আগের কার্যদিবস অর্থাৎ সোমবার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৫৫৯৬ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ০.২৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১২৮৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২০৬৬ পয়েন্টে। আর ওইদিন লেনদেন হয়েছিল ৭৬০ কোটি ৮২ লাখ ১৩ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ৫৫ কোটি ১০ লাখ ৭৯ হাজার টাকা।

এদিকে, দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ব্রড ইনডেক্স ৪৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১০ হাজার ৪৬৩ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৪০টি কোম্পানির ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩২টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৪৪ কোটি ৯২ লাখ ৫৭ হাজার টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

*

*

Top