আজ: মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২ইং, ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৬ অগাস্ট ২০২১, সোমবার |



kidarkar

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের রবির শেয়ার বিক্রির হিড়িক!

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত টেলিকমিউনিকেশন খাতের বহুজাতিক মোবাইল অপারেটর কোম্পানি রবি আজিয়াটার শেয়ার বিক্রির হিড়িক পড়ছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের। অপরদিকে একই খাতের বহুজাতিক কোম্পানি গ্রামীণফোন এবং দেশীয় কোম্পানি বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানির শেয়ার কিনেছেন তারা। গত ১ জুলাই থেকে ৩১ জুলাই সময়ে এই শেয়ার কেনা-বেচা করেছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, টেলিকমিউনিকেশন খাতে মোট তিনটি কোম্পানি তালিকাভুক্ত রয়েছে। এর মধ্যে ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে তালিকাভুক্ত কোম্পানি রবি আজিয়াটা লিমিটেডের দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছেন প্রাতষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। কোম্পানিটির ৫২৩ কোটি ৭৯ লাখ ৩২ হাজার ৮৯৫টি শেয়ারের মধ্যে গত ৩০ জুন পর্যন্ত উদ্যোক্তা-পরিচালকদের হাতে শেয়ার ছিল ৯০ দশমিক ৫ শতাংশ। এখনো তাদের হাতে সেই শেয়ারই রয়েছে।

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে ছিল ১ দশমিক ৯২ শতাংশ শেয়ার। সেখান থেকে গত এক মাসে দশমিক ১৯ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। ফলে ৩১ জুলাই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৭৩ শতাংশ। এই শেয়ার কিনেছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। বর্তমানে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে কোম্পানির মোট ৮ দশমিক ২২ শতাংশ শেয়ার রয়েছে। ৩০ জুন সময়ে ছিল ৮ দশমিক ৩ শতাংশ। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রবির শেয়ার বিক্রি হয়েছে ৪২ টাকা ৩০ পয়সায়।

ঊর্ধ্বমুখী পুঁজিবাজারে গত এক মাসে যেখানে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে, সেখানে রবির শেয়ারের দাম কমেছে ৩টাকা। এছাড়াও নতুন করে রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাহতাব উদ্দিন আহমেদ পদত্যাগ করায় কোম্পানিটির প্রতি বিনিয়োকারীদের আস্থা কমেছে। আর তাতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বাজার ছাড়ছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোম্পানি সচিব আহমেদ ইকবাল পারভেজ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে এই সময়ে ঠিক উল্টো চিত্র ছিল আরেক বহুজাতিক কোম্পানি গ্রামীণফোন লিমিটেডের (জিপি)। ২০০৯ সালে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির সর্বশেষ অর্থাৎ ৩১ জুলাই পর্যন্ত সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার রয়েছে ৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ। যা এর আগের মাস অর্থাৎ ৩০ জুনে ছিল ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ। অর্থাৎ এক মাসের প্রাতষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নতুন করে ৫ শতাংশ শেয়ার কিনেছেন।

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি বিদেশিরাও দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার কিনেছেন। আর এই শেয়ার বিক্রি করেছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। বহুজাতিক এই কোম্পানির শেয়ার সর্বশেষ বিক্রি হয়েছে ৩৬৩ টাকায়।

এছাড়াও বেশি সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিসিএল) শেয়ার সর্বশেষ লেনদেন হয়েছে ১৮৩ টাকায়। গত ৩০ জুন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে কোম্পানির মোট শেয়ারের ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ শেয়ার ছিল।

গত এক মাস অর্থাৎ ৩১ জুলাই পর্যন্ত সময়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা কোম্পানির আরও ১ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার কিনেছেন। তাতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মোট শেয়ার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ৫ শতাংশে। এই সময়ে বিদেশি ও সাধারণ বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির ১ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছেন।

৭ উত্তর “প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের রবির শেয়ার বিক্রির হিড়িক!”

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.