আজ: রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ইং, ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২০ নভেম্বর ২০২১, শনিবার |



kidarkar

সূচকের সঙ্গে বাজার মূলধন বেড়েছে ৪ হাজার কোটি টাকার বেশি

শেয়ারবাজার রিপোর্ট : গত সপ্তাহে উত্থানের মধ্য দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে শেয়ারবাজারে। সপ্তাহটিতে উভয় শেয়ারবাজারের প্রধান প্রধান সূচক বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে টাকার পরিমাণে লেনদেন। তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনি দর কমেছে। সূচক ও লেনদেনের পাশাপাশি গত সপ্তাহে বাজার মূলধন সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা বেড়েছে।

জানা গেছে, সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস লেনদেন শুরুর আগে ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল ৫ লাখ ৫৬ হাজার ৪৭০ কোটি ৮ লাখ ৭৭ হাজার ৭৩১ টাকায়। আর সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৫ লাখ ৬১ হাজার ৭৮ কোটি ৫৬ লাখ ১৭ হাজার ৫৬২ টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বিনিয়োগকারীরা চার হাজার ৬০৮ কোটি ৪৭ লাখ ৩৯ হাজার ৮৩১ টাকা বা ০.৮৩ শতাংশ বাজার মূলধন ফিরেছে।

গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ছয় হাজার ৯৯২ কোটি ৬১ লাখ ৮৪ হাজার ৮৮৮ টাকার লেনদেন হয়েছে। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল পাঁচ হাজার ৮৯৮ কোটি ৪৭ লাখ ৩৪ হাজার ৬৯০ টাকার। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে লেনদেন এক হাজার ৯৪ কোটি ১৪ লাখ ৫০ হাজার ১৯৮ টাকা বা সাড়ে ১৮ শতাংশ বেড়েছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৯৫.৮৯ পয়েন্ট বা ১.৩৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাত হাজার ৯১.৮২ পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ২.৭৫ পয়েন্ট বা ০.১৯ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৩.৯৮ পয়েন্ট বা ০.৫২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৪৮০.৩৩ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৬৯৪.৯৫ পয়েন্টে।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট ৩৮০টি প্রতিষ্ঠান শেয়ার ও ইউনিট লেনদেনে অংশ নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ১৭৩টির বা ৪৫.৫৩ শতাংশের, কমেছে ১৯১টির বা ৫০.২৬ শতাংশের এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টির বা ৪.২১ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বিদায়ী সপ্তাহে টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ২৫২ কোটি ১১ লাখ ৫০ হাজার ৩৭০ টাকার। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১৬৫ কোটি ৮০ লাখ ৪৩ হাজার ৯৬৩ টাকার। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে সিএসইতে লেনদেন ৮৬ কোটি ৩১ লাখ ৬ হাজার ৪০৮ টাকা বা ৫২ শতাংশ বেড়েছে।

সপ্তাহটিতে সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২২৫.৮৯ পয়েন্ট বা ১.২০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৭২৩.১২ পয়েন্টে। সিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে সিএসসিএক্স ১৪১.৮২ পয়েন্ট বা ১.১৫ শতাংশ, সিএসই-৩০ সূচক ২৮২.৩২ পয়েন্ট বা ১.৯৭ শতাংশ এবং সিএসই-৫০ সূচক ৩০.৮৭ পয়েন্ট বা ২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২ হাজার ৪৫৯.৮০ পয়েন্টে, ১৪ হাজার ৫৪৫.৯৯ পয়েন্টে এবং এক হাজার ৫৭৬.৬৪ পয়েন্টে। তবে সিএসআই ১৬.৭৯ পয়েন্ট বা ১.৩২ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৬০.০৩ পয়েন্টে।

সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে ৩৩৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেনে অংশ নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৪৬টির বা ৪৩.৪৫ শতাংশের দর বেড়েছে, ১৭৬টির বা ৫২.৩৮ শতাংশের কমেছে এবং ১৪টির বা ৪.১৭ শতাংশের দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

২ উত্তর “সূচকের সঙ্গে বাজার মূলধন বেড়েছে ৪ হাজার কোটি টাকার বেশি”

  • Anonymous says:

    ব্যাঙ্ক গুলো এখনো অমূল্যায়িত ব্যাংক খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ার এখন বিনিয়োগ করলে অনেক ভালো হবে বুঝে শুনে পি ই রি সিইও এখন অনেক ভালো ৮-৯এর মধ্যে আছে আর্ট এবং নয় এর মধ্যেই বিনিয়োগ করলে অনেক লাভবান হবে ।

  • মুহি says:

    বাজার মুলধন বাড়ানোর সাথে সাথে প্রতিটি সেক্টর এর শেয়ারের প্রতিটি কোম্পানির শেয়ার এর প্রতিও সুনজর রাখতে হবে।
    তবেই সাধারণ বিনিয়োগকারীর আস্থা ফিরে আসবে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.