আজ: বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২ইং, ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২২, রবিবার |



kidarkar

শশুরে শহরে এসে ভাষা শিখছেন মঈন আলী

স্পোর্টস ডেস্ক: মঈন আলীর বাবার বাড়ি পাকিস্তান, তার বেড়ে ওঠা ইংল্যান্ডের বার্মিংহাম। তবে বিয়েটা করেছেন বাংলাদেশে সিলেটের মেয়ে ফিরোজা হোসেনকে। শ্বশুরবাড়ি সিলেটে হলেও আসা হয়নি কোনোদিন। তবে খেলার সূত্রে এবারই প্রথম পা পড়েছে শ্বশুরের এলাকায়।

ইংল্যান্ডের এই বিশ্বকাপ জয়ী অল-রাউন্ডার বাংলাদেশে এসেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে খেলতে। সেই সুবাধে সিলেটেও যাওয়া হলো তার। মঈনের স্ত্রী ফিরোজা হোসেনের জন্ম ইংল্যান্ডে, সেখানেই বেড়ে ওঠা। মঈনের সঙ্গে পরিচয়, বন্ধুত্ব, অতঃপর বিয়ে। ফিরোজার আদি বাসস্থান সিলেটের পীর মহল্লা এলাকায়।

২০১৬ সালে হলি আর্টিজানে হামলার পর ইংল্যান্ড দলের বেশ কয়েকজন বাংলাদেশ সফরে আসেননি। মঈন আলীও চান তবে শেষ পর্যন্ত আসতে হয়। সেটা স্ত্রী ফিরোজার কারণে। সেবার আসলেও সিলেট যাওয়া হয়নি মঈনের।

এবার স্ত্রী না বললেও মঈন বাংলাদেশে এসেছেন, সিলেটেও যাওয়া হয়েছে কিন্তু ফিরোজাকে ছাড়া। তবুও আপ্লুত মঈন শশুরের এলাকায় এসে। তার কাছে পাকিস্তান, ইংল্যান্ড আর বাংলাদেশ একই মনে হয়।

রোববার গণমাধ্যমে মঈন বলেছেন, ‘বাংলাদেশও বাড়ি, পাকিস্তানও বাড়ি, ইংল্যান্ডও বাড়ি। আমার কাছে সব একইরকম মনে হয়। আমার শ্বশুরবাড়ির সবাই এখানের। তাদের সবার প্রতি আমার অনেক শ্রদ্ধা রয়েছে। আমি প্রথমবার সিলেটে এলাম। তারা সবসময় আমাকে বলে, সিলেটে চলো, সিলেটে চলো। কিন্তু সময় বের করতে পারি না।”

করোনা মহামারির কারণে হোটেলের বাইরে বের হওয়া যায় না। প্রথমবার এসে সিলেট ঘুরে দেখা ইচ্ছা থাকলে মঈন আলীর বাইরে যাওয়া হচ্ছে না। বাইরে না বেরুতে পারলেও মঈন চেষ্টা করছেন হোটেল কর্মীদের থেকে সিলেটের ভাষা শেখার।

“আমি কিছু সিলেটি শব্দ জানি। সত্যি বলতে, আরও বেশি শিখতে পারলে ভালো হতো। আমি আরও শেখার চেষ্টা করবো, যেহেতু এখানে এসেছি। হোটেলে ছেলেরা আমার সঙ্গে সিলেটি ভাষায় কথা বলে। তাই আমাকে আরও সিলেটি শব্দ শিখতে হবে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.