আজ: সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ইং, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১০ মার্চ ২০১৮, শনিবার |



kidarkar

আয়ু বাড়ায় সাঁতার!

শেয়ারবাজার ডেস্ক: বিশেষজ্ঞদের মতে শরীর সুস্থ রাখতে সাঁতারের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আর সবথেকে মজার বিষয় হল এই শরীরচর্চাটি করতে কোনও যন্ত্রপাতির প্রয়োজন পরে না। শুধু ধারে কাছে সুইমিং পুল অথবা পুকুর হলেই চলে।

১. হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়ে:

সাঁতার হল এক ধরনের অ্যারোবিক এক্সারসাইজ। এই ধরনের শরীরচর্চা করলে হার্টের পাম্প করার ক্ষমতা বাড়তে শুরু করে। সেই সঙ্গে হৃদপিন্ডের পেশীদেরও সচলতা বৃদ্ধি পায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়ে। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত সাঁতার কাটা শুরু করলে দেহের ভিতর প্রদাহ কমতে শুরু করে। আর এমনটা হওয়া মাত্র যে শুধু হার্টের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কমে, তা নয়, সেই সঙ্গে শরীরের বাকি অঙ্গের কর্মক্ষমতা কমে যাওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পায়।

২. বুদ্ধি বাড়ে:

অষ্ট্রেলিয়ার একদল গবেষক এই বিষয়ে গবেষণা চালাতে গিয়ে লক্ষ করেছিলেন যারা নিয়মিত সাঁতার কাটেন, তাদের মোটর স্কিলের উন্নতি ঘটে। ফলে ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে মনোযোগ এবং বুদ্ধিও বাড়তে শুরু করে।

৩. ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়ায়:

আপনি যদি অ্যাস্থেমায় ভুগে থাকেন তাহলে সাঁতার শেখার ব্যাপারে ভাবতে পারেন। কারণ একাধিক স্টাডি একথা প্রমাণ করেছে যে সাঁতার কাটার সময় ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়তে থাকে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই অ্যাস্থেমার প্রকোপ কমে যায়। সেই সঙ্গে নাক ডাকার সমস্যাও একেবারে বাগে চলে আসে।

৪. খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়:

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত সাঁতার কাটলে শরীরে উপকারি কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। সেই সঙ্গে কমে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রাও। ফলে স্বাভাবিকভাবেই কমে হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা।

৫. পেশীর শক্তি বৃদ্ধি পায়:

প্রতিদিন মাত্র ৩০ মিনিট সাঁতার কাটলেই সারা শরীরের পেশীর শক্তি বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে পেটের চর্বিও কমতে শুরু করে। বিশেষজ্ঞরা সাঁতারকে সবথেকে কার্যকরী অ্যারোবিক এক্সারসাইজ হিসেবে বিবেচিত করে থাকেন।

৬. আয়ু বৃদ্ধি পায়:

১০০ বছর বাঁচতে চাইলে সাঁতারের থেকে ভাল আর কোনও শরীরচর্চা হতে পারে না। কারণ নিয়মিত সাঁতার কাটলে হঠাৎ মৃত্যুর অশঙ্কা প্রায় ৫০ শতাংশ কমে যায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই জীবনের দৈর্ঘ বাড়ে।

৭. ওজন হ্রাস পায়:

১০ মিনিট দৌড়ালে যেখানে কম-বেশি ১০০ ক্যালরি বার্ন হয়, সেখানে একই সময় সাঁতার কাটলে প্রায় ১৫০ ক্যালরি বার্ন হয়ে থাকে। ফলে ওজন কমতে থাকে দ্রুত গতিতে। তবে নিয়মিত সাঁতার কাটতে হবে, না হলে কিন্তু সেভাবে সুফল পাবেন না।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.