পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বিমান!

antonovশেয়ারবাজার ডেস্কঃ সোভিয়েত ইউনিয়নের শাসনামলে ৮০-র দশকে এনটোনভ ডিজাইন ব্যুরো ‘এন-২২৫ ম্রিয়া’ নামে একটি বিমান তৈরী করে। ইউক্রেনিয়ান ভাষায় ‘ম্রিয়া’ মানে হলো ‘স্বপ্ন’। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর বিমানটির বর্তমান মালিক হয় ইউক্রেন।

এনটোনভ এন-২২৫ ম্রিয়া সর্বোচ্চ ৬৪০টন নিয়ে আকাশে উড়াল দিতে সক্ষম। বিমানটির আছে ৬টি টারবোফেন ইঞ্জিন। শুধু তাই না, বিমানটির পাখা অন্য যে কোনো বিমানের চেয়ে বড়। সারা বিশ্বে এ ধরণের বিমান আছে মাত্র একটি।

এনটোনভ এন-১২৪ মডেলের আদলে নির্মিত হয়েছে এনটোনভ এন-২২৫ ম্রিয়া। ১৯৮৮ সালে এর নির্মাণ কাজ শেষ হয় এবং একই বছরের ২১ ডিসেম্বর প্রথম আকাশে পাখা মেলে। নির্মাণের পর সামরিক কাজে বিমানটি ব্যবহার করে সোভিয়েট ইউনিয়ন। মূলত ‘বুরান স্পেসক্রাফট’ সফলভাবে বহনের জন্য এনটোনভ এন-২২৫ ম্রিয়া ব্যবহৃত হতো।

উল্লেখ্য, স্পেসক্রাফট হল বিশেষ ধরণের বিমান, যেটা পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে অবস্থান করলে সাধারণ বিমানের মতো পরিচালনা করা যায়। আবার, একটি স্পেসক্রাফটকে যখন পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের বাইরে মহাশূণ্য পাঠানো হয়, তখন সেটা মহাকাশযানের মতো কাজ করতে সক্ষম।

সোভিয়েত মিলিটারির অভিযান শেষ করার পর ৮ বছর বিমানটি ব্যবহার করা হয়নি। এরপর, প্রয়োজনীয় মেরামত শেষে তা আবার আকাশে উড়ে। এবার সামরিক কাজে ব্যবহার না করে এনটোনভ এয়ালাইন্সের অধীনে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত হয় এনটোনভ এন-২২৫ ম্রিয়া। বিমানটি একবার ২৫৩,৮২০ কেজি বহন করেছিল। (সূত্রঃ ইন্টারনেট)

 

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top