মিউচ্যুয়াল ফান্ডের আইন মেনে বিনিয়োগে বিএসইসির নির্দেশ

BSECশেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকা বহির্ভুত কোম্পানির শেয়ারে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বিনিয়োগ ট্রাস্টিদের আইন মেনে করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড সম্পদ ব্যবস্থাপক কোম্পানি পরিচালনা করলেও এর তদারকি করে ট্রাস্টি।

সম্প্রতি অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানিতে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বিনিয়োগের তথ্য কমিশন পর্যালোচনায় দেখতে পেয়েছে কিছু এসেট ম্যানেজাররা আইন মেনে বিনিযোগ করেনি। তাই এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়ে ট্রাস্টিদের চিঠি দিয়েছে কমিশন। পাশাপাশি এ বিষয়ে অগ্রগতির তথ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কমিশনের এক কর্মকর্তা শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে জানান, মিউচ্যুয়াল ফান্ড আইনে অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ সীমা নির্ধারণ করা আছে। যারা সীমার বাইরে রয়েছে তাদেরকে দ্রুত সঠিক পথে আসতে হবে। ব্যর্থদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিএসইসি সূত্রে জানা যায়, সিকিউরিটিজ আইন অনুযায়ী মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো তাদের আকারের ৬০ শতাংশ অর্থ পুঁজিবাজারে, প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে এবং প্রি-আইপিও প্লেসমেন্ট শেয়ারে বিনিয়োগ করতে পারে।  এর মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ারে ৩০ শতাংশ বিনিয়োগ থাকতে হবে। অপরদিকে মেয়াদি মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলো তাদের আকারের ৪০ শতাংশ অর্থ পুঁজিবাজারে তালিকা বহির্ভুত খাতে বিনিয়োগ করতে পারে।

উল্লেখ্য, অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ার কেনায় ফান্ড ম্যানেজারদের অনিয়ম ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো বিএসইসির নজরে আসে। সেসময় সম্পদ ব্যবস্থাপক কোম্পানি এলআর গ্লোবাল আইন ভেঙ্গে বিনিয়োগ করেছিল। এর জন্য কোম্পানিটিকে ৫০ লাখ টাকা জরিমানার পাশাপাশি নতুন ফান্ড গঠনে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল বিএসইসি। পাশাপাশি এলআর গ্লোবাল পরিচালিত ফান্ডগুলোর ট্রাস্টি বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সকে ২৫ লাখ টাকা এবং অডিটর হুদা ভাসী চৌধুরীকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছিল কমিশন।

এছাড়া এলআর গ্লোবাল মিউচ্যুয়াল ফান্ড ওয়ানের ৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা ইউনিকম ইন্ডাস্ট্রিজে বিনিয়োগ করেছে ফান্ডটির সম্পদ ব্যবস্থাপক এলআর গ্লোবাল; যা ওই কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের ২০.৬৭ শতাংশ। এতে ফান্ডটি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মিউচ্যুয়াল ফান্ড বিধিমালা-২০০১ লঙ্ঘন করেছে। ফান্ডটির ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ সমাপ্ত হিসাব বছরের আর্থিক প্রতিবেদন মূল্যায়নের ভিত্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন নিরীক্ষক প্রতিষ্ঠান। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে নিরীক্ষকের আপত্তি প্রকাশও হয়েছে।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top