সম্পাদকীয় এর সকল সংবাদ

বৈঠকের আঁইওয়াশ না দেখিয়ে প্রফেশনাল আচরণ জরুরি

বৈঠকের আঁইওয়াশ না দেখিয়ে প্রফেশনাল আচরণ জরুরি

বাজার যখনই ধসের মুখে যায় তখনই মার্কেট মেকারদের বৈঠকের খবর পাওয়া যায়। বৈঠকের পর মার্কেট কিছুদিন ভালো থাকে, তারপর আবার দরপতন শুরু হয়। গেল ৮ বছর ধরে পুঁজিবাজারে এসব কর্মকান্ড দেখে বিনিয়োগকারীরা অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে। আইসিবি যখন মার্কেট মেকারের ভূমিকা পালন করে, বাজার স্থিতিশীল করার চেষ্টা করে তখন তারা কিছু বাজে কৌশলের আশ্রয় নেয়। যেটা

ইপিএসের পরিবর্তনে কোম্পানিগুলোর ব্যাখ্যা নেই: বিএসইসির শক্ত ভূমিকা জরুরি

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর প্রান্তিক প্রতিবেদনে ইপিএস,এনএভিপিএস এবং এনওসিএফপিএসে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসলে তার ব্যাখ্যা দিতে হবে। ২০১৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এরকম নির্দেশনা দিলেও আমলে নিচ্ছে বেশিরভাগ কোম্পানি। সম্প্রতি প্রকাশিত প্রান্তিক প্রতিবেদনে কোনো কোনো কোম্পানির ২০ থেকে ৮০ শতাংশ পর্যন্ত পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু এর কোনো ব্যাখ্যা কোম্পানিগুলো উপস্থাপন করেনি। কেন কোম্পানির ইপিএস কমে

ইনডেক্স নিয়ে বাজারে অসুস্থ প্রতিযোগিতা হচ্ছে

আমাদের দেশের বেশির ভাগ মানুষ ইনডেক্সকে কেন্দ্র করে শেয়ার বেচা-কেনা করে। ইনডেক্স নামতে দেখলেই হাতের শেয়ার বিক্রি করে, আবার ইনডেক্স বাড়তে দেখলেই শেয়ার কেনা শুরু করে। আমাদের বিনিয়োগকারীদের এই আচরণকে পুঁজি করে একটি পক্ষ ইনডেক্স নিয়ে শুক্ষ কারচুরি করছে।যা একটু ঠাণ্ডা মাথায় চিন্তা করলেই বোঝা যায়। . ব্যাংকের শেয়ার গুলো ইনডেক্সকে প্রভাবিত করে। আর তাই

রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে এক পয়সাও খরচ হয়নি: খুশি হয়েছে লাখ লাখ মানুষ

প্রধানমন্ত্রীর এক ঘোষণায় চাঙ্গা হয়ে উঠেছে শেয়ারবাজার। বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ফিরে এসেছে প্রাণ চাঞ্চল্য। তারা দীর্ঘদিন ধরে এমন শীর্ষ পর্যায় থেকে এ ধরনের একটি ঘোষণার প্রত্যাশায় ছিল। মূলত একটি পতনশীল বাজারকে স্থিতিশীল করতে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বপূর্ন বক্তব্য অপরিহার্য। কিন্তু দু:খজনক বিষয় হলো বিশ্বের সব দেশে এই রেওয়াজটি থাকলেও আমাদের দেশে তা একেবারেই অনুপস্থিত। বিশেষ করে যিনি

ধৈর্যের ফল মধুর: অনেক সুখবর আসছে বিনিয়োগকারীদের জন্য

১৯৯৬ সালে মতিঝিলের সোনালী ব্যাংকের সামনে থেকে ইত্তেফাকের মোড় পর্যন্ত যখন শেয়ার কেনাবেচার হাট বসেছিল তখন আমি সহ সম্পাদক হিসাবে কাজ করছি জাপা নেতা এরশাদের দৈনিক জনতায়। মানিক নগরে বাসা হওয়ায় অফিসের তেজগাঁও কার্যালয়ে যাওয়ার জন্য বলাকা বাস ধরতে আমাকে প্রতিদিনই হাজির হতে হতো ইত্তেফাকের মোড়ে। সেখান থেকে আড়াই টাকায় নাবিস্কো। পরে বাকি পথ হেটে

বিএসইসিকে সাধুবাদ: তবে উদ্যোগ নিতে হবে পতন অসহনীয় হওয়ার আগেই

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) একটি ইশারাতেই গত কয়েকদিন ধরে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাজার। যদিও বাজার যে পর্যায়ে চলে গিয়েছিল তার চেয়ে নিচে নামার আর কোন রাস্তা ছিলনা। তারপরও আমরা মনে করি শেষ পর্যায়ে হলেও বাজার ধরে রাখার জন্য বিএসইসির উদ্যোগটিতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক বিনিয়োগকারীরা প্রাণ ফিরে পেয়েছেন। তারা এতোদিন অব্যাহত পতন দেখতে দেখতে বাজার

রাঙ্গামাটিদের রুখে দাঁড়ানোর এখনই সময়

শেয়ার বাজারের জন্য একটি দু:সংবাদ প্রকাশ করেছে জাতীয় অনলাইন পোর্টাল শেয়ারবাজার নিউজ ডটকম। ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারী প্রকাশিত ওই সংবাদে তালিকাভূক্ত কোম্পানীগুলোর অনিয়ম অব্যাবস্থাপনা ও স্বেচ্ছাচারিতার একটি বাস্তব চিত্র সামান্য ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছে পত্রিকাটি। সামান্য বলার কারণ হলো অনেক খোজাখুজির পরও কোম্পানির কোনো পর্যায়ের কারো সাথেই যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করতে সমর্থ হয়নি। সংবাদ পত্রের ইথিকস

Top